Friday, June 24, 2011

বড় লোকের কেচ্ছা


‘এই ফারহান তাড়াতাড়ি খেতে আয়, লাঞ্চ রেডি’


আম্মু ডাকছে। আমি বিরক্ত হয়ে কম্পিউটার থেকে উঠলাম। উফ! মাও যে কি…এই ছুটির দিনগুলোতে একটু শান্তিতে বসে নেট ব্রাউজ করব সেই উপায়ও নেই। কম্পিউটার বন্ধ করে, ডাইনিংরুমে গেলাম। আমি বসতেই আম্মু বলের প্রায় অর্ধেক রাইস আমার প্লেটে ঢেলে দিল। ব্যায়াম করা আমার নতুন সিক্স প্যাক শরীর দেখে আম্মুর ধারনা হয়েছে আমার নাকি শুকিয়ে হাড্ডি দেখা যাচ্ছে। আমি আমার অর্ধেক ভাত পাশে বসা আমার ভাই আরিয়ানের প্লেটে চালান করে দিলাম। আজকে অনেক দিন পর আমি আর আদিতি বিকালে ডেটে বের হব, এত ভরা পেট নিয়ে কি আর হাটা চলা করা যায়? কোনমতে খাবার শেষ করে রুমে গিয়ে বিছানায় উপুর হয়ে শুয়ে পড়লাম। একটু আগেই জিম থেকে হার্ড এক্সারসাইজ করে এসেছি। ক্লান্তিতে কখন ঘুমিয়ে পড়ছি টেরও পেলাম না। ঘুম ভাংলো আদিতির ফোনে।



‘হ্যালো’ আমি ঘুম জড়ানো কন্ঠে বললাম।



‘কি ব্যাপার তুমি এখনো রেডি হওনি?’ আদিতি মিস্টি করে বলল।



‘আ…হ্যা আমি...এইতো প্রায় রেডি’ আমি তখন বিছানা থেকে উঠে ফুল স্পিডে একটা ব্যাগি জিন্স আর স্কিন টাইট শার্ট পড়ছি।



‘তুমি রেডী?’ আমি প্যান্টের জিপার লাগাতে লাগাতে বললাম।



‘এই তো



‘আমি তাহলে তোমাকে তোমার বাসার সামনে এসে call দিচ্ছি, Okey?’



‘ঠিক আছে, Bye’



আমিও Bye বলে ফোন কেটে দিয়ে লিভিং রুমে গেলাম। আম্মু আরিয়ানের সাথে বসে টিভিতে একটা Movie দেখছিল।



‘আম্মু, তোমার গাড়িটা একটু লাগবে’



‘নিচে লোকমানের কাছে চাবি আছে, নিয়ে যা’ আম্মু movie টায় এতটাই ডুবে ছিল যে জিজ্ঞাসও করল না কোথায় যাব। আমি নিচে লোকমানের কাছ থেকে চাবি নিয়ে গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে পড়লাম। আদিতির বাসার নিচে গিয়ে ওর মোবাইলে একটা মিসকল দিতেই ও নেমে আসলো। ও যখন নেমে আসছিল তখন আমি গাড়ির জানালা দিয়ে হা করে তাকিয়ে ছিলাম। ও তো এমনিতেই অনেক সুন্দরী তার উপর মিডিয়াম লেংথ স্কার্টের সাথে শর্টসে ওকে আজ অপুর্ব লাগছে। নিচে ওর লোমহীন সুন্দর উরু দেখা যাচ্ছিল। ও কাছে আসতেই আমি গাড়ির দরজা খুলে ধরলাম। ও ঢুকে বসে আমার দিকে তাকিয়ে মিস্টি একটা হাসি দিল। ওর সে হাসি দেখলে আমার আজও হার্ট এটাক হওয়ার অবস্থা হয়।



আমি এক্সিলারেটরে চাপ দিয়ে ওকে জিজ্ঞাসা করলাম, ‘তারপর আজ হঠাৎ এই ড্রেস?’



‘হঠাৎ ইচ্ছে করল, কেন তুমিও তো এইধরনের ড্রেসই পছন্দ কর’ আদিতি আমার দিকে ফিরে বলল।



‘হুম…’ আমরা এভাবে টুকটাক কথাবার্তা বলতে বলতেই রেস্টুরেন্ট ভুতের সামনে চলে আসলাম। গাড়িটা পার্ক করে আমি আর আদিতি ভেতরে গেলাম। আমরা আগে কখনো ভুতে আসিনি। ক্যান্ডেল লাইট ডিনার খেতে কেমন যেন একটা অপার্থিব পরিবেশ। যতটুক না খাওয়া হল তার চেয়ে বেশী সময় আমরা একজন আরেকজনের দিকে তাকিয়ে থাকতেই ব্যাস্ত ছিলাম। বিলটিল চুকিয়ে আমরা এসে গাড়িতে বসলাম। আদিতি আজ যেন আমার দিকে কিভাবে স্বপ্নালু চোখে তাকাচ্ছিল। অন্য সময় আমরা প্রচুর কিছু নিয়ে কথা বলি কিন্ত আজ আদিতি যেন কেমন চুপচাপ। ওর বাসায় যাওয়ার পথেও আমাদের মাঝে খুব একটা কথা হলো না। ওর বাসার নিচে গিয়ে গাড়ি থামাতেই আদিতি আমার দিকে তাকালো।

‘এই উপরে উঠবে না?’

‘এখন? না থাক, আঙ্কেল, আন্টি কি মনে করবে…’

‘আব্বু, আম্মু তো বাসায় নেই, আব্বুর কনফারেন্সে দুজনেই দুদিনের জন্য প্যারিস গিয়েছে, চলো আমার নতুন পিয়ানোটা দেখাব’

‘পিয়ানো? Oh my GOD, কে দিয়েছে?’

‘আব্বু, এখন চলো তো’ বলে আদিতি টেনে আমাকে গাড়ি থেকে বের করল। আমি ওদের বাসার দাড়োয়ানের হাতে পার্ক করার জন্য গাড়ির চাবিটা দিয়ে আদিতির হাত ধরে ভিতরে গেলাম। ওদের কেয়ারটেকার বাসার দরজাটা খুলে দিতেই আদিতি সোজা আমাকে ওর রুমে নিয়ে এল। ওর বিশাল রুমেরই একপাশে বিশাল পিয়ানোটা বসানো। আদিতির মত আমারও পিয়ানো বাজানোর অনেক শখ। আমি এগিয়ে গিয়ে লিডটা তুলে, বসলাম। আদিতিও একটা টুল টেনে আমার পাশে বসল। আমি আদিতির প্রিয় একটা পুরনো কান্ট্রি সং এর মেলোডী বাজাতে লাগলাম। আদিতি আমার দিকে এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিল। আমিও বাজাতে বাজাতে বারাবার ওর দিকে চোখ তুলে তাকাচ্ছিলাম। আমাদের প্রথম দেখাই হয়েছিল পিয়ানো বাজানো শিখতে গিয়ে। তাই দুজনে দুজনার দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতে সেই মধুর স্মৃতির কথা আমাদের মনে পড়ে যাচ্ছিল; যেদিন দুজনেই দুজনার মধ্যে নিজের মনের মানুষকে খুজে পেয়েছিলাম। মেলোডী শেষ আমি আদিতির দিকে হাসি মুখে তাকালাম। ও আমার দিকে কেমন যেন গভীর চোখে তাকিয়ে ছিল। ওর হালকা ব্রাউন চোখের চাহনি যেন আমাকে ভেদ করে কোন অতল গহ্বরে চলে যাচ্ছিল। আমি দুহাত দিয়ে ওর মুখখানি ধরে আমার মুখটা এগিয়ে নিলাম। আমাদের ঠোট স্পর্শ করতেই যেন দুজনের শরীর দিয়ে শিহরন বয়ে গেল। আমি আলতো করে ওর ঠোটে একটা চুমু খেলাম, তারপর একটু জোরে। ওও আমাকে চুমু খেতে লাগল। চুমু খেতে খেতে আমি ওর সিল্কি চুলে হাত বুলাচ্ছিলাম, আর ও আমার পিঠে হাত বুলিয়ে দিচ্ছিল। আমি আমার ঠোটের উপর ওর জিহবার আলতো স্পর্শ পেলাম; আমিও আমার জিহবা দিয়ে ওরটা স্পর্শ করলাম, দুজনে জিহবা দিয়ে খেলতে লাগলাম। ওকে চুমু খেতে খেতে খেতে আমার হাত ওর ঘাড়ে স্কার্ট টপের উপর ওঠানামা করছিল। ওকে চুমু খেতে খেতে আমার এমন অনুভুতি হচ্ছিল যে জীবনে কোন মেয়ের সাথে থেকে আমার এমন হয়নি; আদিতিও যেন আজ এক অন্য রকম অনুভুতি নিয়ে আমাকে চুমু খাচ্ছিল। আমরা এভাবে যেন প্রায় অনন্তকাল চুমু খেয়ে যাচ্ছিলাম। ও চুমু খেতে খেতেই আমাকে ধরে উঠিয়ে আলতো করে ঠেলে ওর বিছানার কাছে নিয়ে গেল; তারপর হঠাৎ করেই আমাকে ঠেলে বিছানায় ফেলে দিয়ে আমার উঠে আবার চুমু খাওয়ায় মনোযোগ দিল। আমি ওর ঠোট থেকে নেমে ওর গালে, গলায় গভীর ভালোবাসায় চুমু খেতে লাগলাম। ওর মুখ দিয়ে তখন মিস্টি মিস্টি শব্দ বেরিয়ে আসছিল। চুমু খেতে খেতে আমি ওর বুকের ভাজে মুখ নামিয়ে আনলাম। ও আবার আমার মুখখানি ধরে ওর ঠোটের কাছে নিয়ে আসলো। আমি আবার ঠোটে চুমু খেতে খেতে ভিতরে জিহবা ঢুকিয়ে দিলাম। ওও ওর পাতলা ঠোট দিয়ে আমার জিহবা চুষতে লাগল। আদিতির বাতাবি লেবুর মত কোমল ঠোটের স্পর্শ আর ওর শরীরের মিস্টি গন্ধে এতটাই বিভোর হয়ে ছিলাম যে ও কখন আমার শার্টের বোতাম খুলতে শুরু করেছে তা টেরই পাইনি। বোতাম খুলতে খুলতে আদিতি ওর ঠোট আমার গলায় নামিয়ে আনলো, ওর গরম জিহবা দিয়ে আমার গলায় সোহাগ বুলিয়ে দিতে দিতে নিচে নামতে লাগল। আদিতি আজকের মত এমন আর কখনো করেনি। আমিও বুভুক্ষের মত ওর আদর নিতে নিতে ওর রেশম কোমল চুলে হাত বুলিয়ে দিতে লাগলাম। আমার নগ্ন বুকের মাঝে ঠিক যেখানে ওর স্মৃতিকে ধরে রেখেছি সেখানেই যেন আদিতি চুমু খাচ্ছিলো। আমি আবার ওকে টেনে তুলে ওর ঠোটে চুমু খেতে লাগলাম। ওর পিঠে হাত বুলাতে বুলাতে হঠাৎ করে ওর একটা দুধে আমার হাত পড়ল। আমরা দুজনেই কেঁপে উঠলাম; আদিতি জীবনে প্রথম ওর দুধে কোন ছেলের হাতের স্পর্শ পেয়ে আর আমি অবাক বিস্ময়ে। অন্য কোন মেয়ের স্তনে হাত দিয়ে আমার এরকম অনুভুতি হয়নি। আমি অনিচ্ছাতেও তাড়াতাড়ি হাত সরিয়ে নিলাম। কিন্ত আদিতি আমার ঠোট থেকে ঠোট উঠিয়ে আমার দিকে তাকালো; তারপর আবার মুখ নামিয়ে এনে ওর হাত দিয়ে আমার একটা হাত ধরে ওর একটা স্তনের উপর রাখল। আমি একটু অবাক হয়ে গেলাম, কিন্ত ওর এটা ভালো লাগছে বুঝতে পেরে হাত সরিয়ে নিলাম না। আমি আলতো করে ওখানে একটা চাপ দিলাম; আদিতির মুখ দিয়ে একটা অস্ফুট শব্দ বেরিয়ে আসল। আমি আমার অন্য হাত দিয়ে ওর অন্য স্তনটা স্পর্শ করলাম। আদিতির দেহ দিয়ে কেমন যেন একটা শিহরন বইয়ে গেল। আমি ওর স্কার্ট টপের উপর দিয়েই হাল্কা ভাবে ওর স্তন গুলো টিপতে লাগলাম। কিন্ত আদিতি যেন আজ ওর সব সীমানা পেরিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় নিয়েছে। ও নিজেই ওর স্কার্ট টপের বোতামগুলো খুলতে লাগল। নিচে আমি ওর গোলাপি ব্রা দেখতে পেলাম। এবার আর আদিতিকে বলে দিতে হলো না। আমি নিজেই ব্রার উপর দিয়ে ওর স্তনগুলো টিপতে লাগলাম। আদিতি যেন অন্য এক সুখের জগতে প্রবেশ করেছিল। ওর মুখ দিয়ে বের হওয়া মিস্টি মিস্টি শীৎকার গুলো আমাকে আরো উদ্বেল করে তুলছিল।
আমি আস্তে আস্তে ওর পিছনে হাত নিয়ে ওর ব্রার হুক গুলো খুলে দিতে ওটা খুলে আমার নগ্ন বুকে এসে পড়ল। জীবনে প্রথম আদিতির স্তন দুটো আমার চোখের সামনে উন্মোচিত হলো। ওর গাঢ় গোলাপী বোটা সহ স্তন দুটো দেখে আমার মনে হল, পৃথিবীর সব নারীর সৌন্দর্য যেন ওর এখানে এসে জমা হয়েছে। ওর বাম স্তনে একটা ছোট্ট তিল; আমি হাত দিয়ে ওটা আলতো করে স্পর্শ করলাম। নগ্ন স্তনে স্পর্শ পেয়ে আদিতি নিজেকে আর ধরে রাখতে পারছিলোনা। ও ঝুকে এসে আমার সারা মুখে জিহবা দিয়ে আদর বুলিয়ে দিতে লাগল। আমর পক্ষেও নিজেকে সামলিয়ে রাখা আর সম্ভব হলো না। আমি ওর মুখটা তুলে ওর বুকে মুখ নামিয়ে আনলাম, তারপর তৃষ্ঞার্তের মত ওর বাম স্তনটা চুষতে লাগলাম। আর হাত দিয়ে অন্য স্তনটা টিপতে লাগলাম। আদিতি আর কখনো এরকম সুখ পায়নি; ওর মুখ দিয়ে অনেক আদুরে শব্দ বেরিয়ে আসছিল। এর মধ্যেই আদিতি ওর টপটা পুরো খুলে ফেলল। আমি ওর নগ্ন পিঠে ওর রেশমের মত স্কিনে হাত বুলিয়ে দিতে লাগলাম। এদিকে আমার সোনাও শক্ত হয়ে গিয়েছিল; ওটা আমার উপরে থাকা আদিতির নিম্নাঙ্গে ঘষা খাচ্ছিল। আদিতির যেন নিচের সবচেয়ে গোপ্ন বাগিচার মধ্যে এ কিসের উপদ্রব তা দেখার জন্যই ওর হাতটা নিচে নামিয়ে আমার প্যান্টের বোতাম খুলতে লাগল; তারপর আমার আন্ডারওয়্যারের ভিতরে দিয়ে হাতটা গলিয়ে দিল। আমার সোনায় ওর হাত পড়তেই আমি চমকে উঠলাম, এই কি আমার সেই লাজুক আদিতি? ও স্তনে আমার আদর নিতে নিতে হাত দিয়ে আমার সোনায় আলতো করে চাপ দিতে লাগল। আমি গড়িয়ে গিয়ে আদিতিকে আমার নিচে নিয়ে আসলাম। এবার ওর অন্য স্তনটা চুষতে চুষতে একটা হাত দিয়ে নিচে ওর উরুতে স্পর্শ করলাম, তারপর আস্তে আস্তে ওর স্কার্টের নিচ দিয়ে উপরে নিয়ে আসতে লাগলাম। আদিতি শিউরে উঠতে লাগল। আমি এবার ওর স্তন থেকে মুখ তুলে নিচে তাকালাম। ওর মসৃন পা দুটো সবসময় আমাকে টানত; আজ তাই এগুলো এতো কাছে পেয়ে আমি আর নিজেকে ধরে রাখতে পারলাম না। মুখ নামিয়ে আমি ওর পায়ের পাতা চুষতে শুরু করলাম। চুষতে চুষতে আমি ধীরে ধীরে উপরে উঠতে লাগলাম। যতই উপরে উঠছিলাম আদিতি ততই উত্তেজিত হয়ে উঠছিল। আমি ওর উরুতে পৌছে আস্তে আস্তে ওর স্কার্টটা খুলে দিলাম। স্কার্টের নিচে হাল্কা লাল একটা সিল্কের প্যান্টি, ভিজে সপসপ করছিল। ওর দেহে তখন ওটাই একমাত্র কাপড়। প্রায় নগ্ন আদিতির সৌন্দর্যের কাছে তখন কোন গ্রীক দেবীর সৌন্দর্যও ম্লান হয়ে যেত। আমি এবার মুখ নামিয়ে এনে ওর প্যান্টির উপর দিয়েই ওর যোনিতে মুখ দিলাম। ও থরথর করে কেঁপে উঠলো। আমি উপর দিয়েই ওর যোনীতে জিহবা বুলাতে লাগলাম। কিন্ত আমার মন তখন এতে সন্তষ্ট হতে পারছিলো না। আমি তাই মুখ তুলে ওর প্যান্টিটা পুরো খুলে ফেললাম। ওর লোমহীন গোলাপী যোনী দেখতে অপুর্ব লাগছিল। আমি তাই দেরী না করে ওটা চুষতে শুরু করলাম। আদিতির সেক্সী আনন্দের শীৎকারে তখন সারা ঘর ভরে গিয়েছিল। আমি ওর যোনির ফুটোয় জিহবা ঢুকিয়ে ওকে আরো বেশী আনন্দ দিচ্ছিলাম। আমার সোনাটা তখন আন্ডারওয়্যার ছিড়ে বেরিয়ে আসতে চাচ্ছিলো। তাই আমি ক্ষনিকের জন্য মুখ তুলে আন্ডারওয়্যারটা খুলে ফেলে আবার আদিতির যোনিতে মুখ দিলাম। আরো কিছুক্ষন চুষার পর হঠাৎ আদিতির শরীর ধনুকের মত বাকা হয়ে যেতে লাগল; আর শীৎকারে তখন কান পাতা দায়। তখনি ওর যোনি দিয়ে গলগল করে রস বেরিয়ে আসতে লাগল। আমিও তৃষ্ঞাঈতের মত সব খেতে লাগলাম। সব রস পড়া শেষ হয়ে যেতেও আমি চোষা থামালাম না। কিন্ত আদিতির তখন আর শুধু চোষা দিয়ে হচ্ছিল না। ও আমাকে টেনে ওর উপরে নিয়ে আসলো। ও আমার দিকে গভীরভাবে তাকালো।‘ফারহান, আমি এই দিনটির জন্য বহুদিন ধরে অপেক্ষা করছিলাম……আমি চাই তুমি আজ আমাকে……’ এই পর্যন্ত বলে ও লাল হয়ে গিয়ে আর কিছু বলতে পারলো না। আমি বুঝতে পেরেও ওর দিকে কিছুক্ষন তাকিয়ে রইরাল; তারপর আমার শক্ত সোনাটা ধরে ওর যোনির মধ্যে লাগালাম। ওর ঠোটে ঠোট নামিয়ে এনে আস্তে করে একটা চাপ দিলাম; ওর কুমারী যোনি তখন ওর রসেই ভরে ছিল তাই আস্তে আস্তে ঢুকে গেল। একটু দূরে গিয়েই আমি বাধা পেলাম। ওকে চুমু খেতে খেতে ওর গালে হাত বুলিয়ে দিতে দিতে আস্তে করে একটা চাপ দিতে ওর পর্দা ছিড়ে গেল। আমার মুখের মধ্যেই আদিতির মুখ দিয়ে ছোট্ট একটা আর্ত চিৎকার বেরিয়ে আসলো। আমি ওই অবস্থাতেই সোনা স্থির রেখে ওকে চুমু খেতে খেতে আদর করতে লাগলাম। আমার আদরেই আস্তে আস্তে ও একটু সহজ হয়ে এলো; আমি এবার খুব ধীরে ধীরে ওঠানামা করতে লাগলাম। আমি ওর মুখ দেখে বুঝতে পারলাম ও এবার আনন্দ পেতে শুরু করেছে। আমি আস্তে আস্তে গতি বাড়িয়ে দিলাম। ওর মুখ দিয়ে তখন চরম সুখের শীৎকার বেরিয়ে আসছিল। আমি সোনা ওঠানামা করতে করতে ওর সারা মুখে জিহবা দিয়ে আদর করে দিচ্ছিলাম। ওর হাত দুটো আমার নগ্ন পিঠে ঘুরাফেরা করছিলো। আমি এবার একটু উঠে ওর পা দুটো আমার ঘাড়ে তুলে নিয়ে ওর যোনিতে সোনা ওঠানামা করতে লাগলাম। আমার সোনায় ওর গরম যোনির আদর আর ঘাড়ে ওর মসৃন পা দুটোর স্পর্শ আমাকে পাগল করে তুলছিল। ওও তখন যেন স্বর্গের দ্বারপ্রান্তে পৌছে গিয়েছিল। আমি এভাবেই হাত বাড়িয়ে ওর স্তনদুটো ধরে টিপতে টিপতে থাপ দিতে থাকলাম। ওর মজাও এতে শতগুন বেড়ে গিয়েছিল। আমার তখন বীর্য বের হয় হয় অবস্থা আমি তাই বের করে আনতে গেলাম কিন্ত ও আমাকে বাধা দিল, আমি বুঝলাম ও নিশ্চয় আগেথেকেই কোন সতর্কতা নিয়ে রেখেছে আমিও তাই ওকে আদর করতে করতে থাপাতে লাগলাম। কিছুক্ষন পরেই ওর যোনির ভেতর আমার বীর্যের বিস্ফোরন হল। যোনিতে আমার গরম বীর্যের স্পর্শ পেয়ে ও তখন পাগলপ্রায় হয়ে গিয়েছিল। আমার সাথেই ওরও অর্গাজম হয়ে গেল। এমন আর কখনও অন্য কোন মেয়ের সাথে আমার হয়নি। দুজনেই এরপর একজন আরেকজনকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে রইলাম।

‘আদিতি?’ আমি ওর দিকে তাকিয়ে বললাম।

‘উমমম?’

‘তোমার ভালো লেগেছে, সোনা?’

‘উমমম…’ আদিতি তখন সুখে এতোটাই বিভোর হয়েছিলো যে ওর স্বাভাবিক ভাবে কথা বলার অবস্থাও ছিলনা। ও তখন আলতো ভাবে আস্তে আস্তে আবার শক্ত হয়ে ওঠা আমার সোনায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছিল। হঠাৎ কি মনে করে ও উঠে আমার সোনার দিকে কিছুক্ষন তাকিয়ে কি যেন দেখলো; তারপর আমার দিকে তাকিয়ে একটা দুস্টুমির হাসি দিয়ে ঝুকে, আমাকে অবাক করে দিয়ে আমার সোনায় মুখ দিয়ে চুষতে শুরু করল। আমি অবাক বিস্ময়ে ভাষা হারিয়ে ফেলেছিলাম। আদিতি এত মজা করে চুষছিল যেন পৃথিবীতে এটাই এখন ওর কাছে সবচেয়ে মজার বস্তু। আমারও এক অন্যরকম অনুভুতি হচ্ছিল ওখানে আমার সবচেয়ে প্রিয় মানুষটার আদর পেয়ে। আদিতির এরকম চোষায় আমি আর বেশীক্ষন সহ্য করতে পারলাম না। আমি ওকে টেনে আমার উপরে নিয়ে আসলাম। তারপর আস্তে আস্তে আমার সোনাটা আবার ওর উত্তপ্ত যোনিতে ঢুকিয়ে দিলাম। এবার ও প্রথম থেকেই এত মজা পাচ্ছিল যে উপর থেকে জোরে জোরে আমার উপর ওঠানামা করতে লাগল। ওর অপরূপ স্তন গুলো দোলা খাচ্ছিলো। তাই দেখে আমি ওগুলো দুহাত দিয়ে চেপে ধরে নিচ থেকে থাপ দিতে লাগলাম। ও ঝুকে এসে আমার ঠোটে চুমু খেতে খেতে ওঠানামা করতে লাগল। আমি ওর পিঠে হাত দিয়ে চেপে ধরলাম। ওর আর আমার বুকে ঘষা লাগছিল। আমিও ওকে বুভুক্ষের মত চুমু খেতে খেতে থাপ দিতে লাগলাম। আমি এবার সোনা বের করে বিছানায় উঠে বসলাম, তারপর ওকে আমার উপরে বসিয়ে আবার ওর যোনীতে সোনা ঢুকিয়ে মৈথুন করতে লাগলাম। ও আমাকে চেপে ধরে আদর করছিল। ঐ অবস্থাতেই আমি ওর যোনিতে বীর্য ফেলে দিলাম। তারপর ওকে চেপে ধরে শুয়ে পড়লাম। ওর যোনি থেকে সোনা বের করে এনে দেখলাম ওখান দিয়ে তখন ওর আর আমার মিলিত বীর্য চুইয়ে চুইয়ে পড়ছে।
এটা দেখে আমার কাছে এতটাই লোভনীয় মনে হল যে আমি আবার মুখ নামিয়ে এনে ওর যোনি চুষতে শুরু করলাম। ঐ অবস্থাতেই আদিতি আমার উরু ধরে টেনে সরাতে চাইল। আমি বুঝতে পেরে ওর মুখের কাছে আমার সোনাটা নিয়ে গেলাম। ওও আমার নেতিয়ে পড়া সোনা মুখে পুরে চুষতে শুরু করল। এভাবে আমরা দুজনই দুজনকে আনন্দ দিচ্ছিলাম। আমার সোনাও আবার শক্ত হতে শুরু করল। আমি ওর যোনি থেকে মুখ তুলে নিলাম তারপর ঘুরে ওকে ধরে পিছন করে তুললাম। তারপর তৃতীয়বারের মত ডগি স্টাইলে ওর যোনিতে সোনা ঢুকিয়ে দিলাম। এবার প্রায় পুরো সোনাটাই বারবার ওর যোনীতে ঢুকছিল আর বের হচ্ছিল। আমি ওর ঝুলে থাকা স্তন দুটো ধরে টিপতে টিপতে থাপ দিচ্ছিলাম। ও তখন মাত্রাছাড়া আনন্দ পাচ্ছিল। কিন্ত এবার ওর মাথায় ছিল অন্য চিন্তা। ও আমার প্রায় চরম অবস্থায় ও যোনি থেকে আমার সোনা বের করে নিয়ে ঘুরে আমাকে শুইয়ে দিল তারপর আমার সোনা মুখে নিয়ে চুষতে শুরু করল। আমি বুঝতে পারলাম, ও আমার বীর্যের স্বাদ নিতে চায়। কিছুক্ষন পরেই ওর মুখে আমার বীর্যপাত হল। ও প্রথমে একটু শিউরে উঠলেও মজা করে আমার বীর্য সব খেয়ে নিল। তারপর উপরে উঠে আমাকে চুমু খেতে লাগল; আমি ওর ঠোটে লেগে থাকা আমার বীর্যের স্বাদ পেলাম। ওর পিঠে হাত বুলিয়ে দিয়ে আদর করতে করতে চুমু খেয়ে মনে মনে প্রতিজ্ঞা করলাম, যে আর কখনো আদিতিকে ছেড়ে অন্য কাউকে ভালোবাসবো না। ওই হবে আমার জীবনের সব.....

0 comments:

যৌনতা ও জ্ঞান © 2008 Por *Templates para Você*